1. [email protected] : Saiful Islam Julhas : Saiful Islam Julhas
  2. [email protected] : Sk :
কেন্দ্রীয় ঈদগা মাঠ পার্ক হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে - Barta Bangla 24
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪৭ অপরাহ্ন

কেন্দ্রীয় ঈদগা মাঠ পার্ক হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে

সাংবাদিক :
  • সংবদটি আপলোড করা হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১২৫ বার দেখা হয়েছে

জুলহাস আহমেদ,বরগুনা:

বরগুনার সর্বোচ্চ ভিআইপি এরিয়া সার্কিট হাউস। এ সার্কিট হাউসটির ঠিক দক্ষিণ পাশে নির্মাণ করা হয়েছে ঈদগাহ মাঠ। আর এই ঈদগাহ মাঠের দক্ষিণ পাশে রয়েছে সরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল। পশ্চিম পাশে রয়েছে পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জন কার্যালয়, গণপূর্ত বিভাগ। উত্তর-পশ্চিম কোণে রয়েছে বিচার বিভাগ। পূর্ব দিকে রয়েছে ডায়াবেটিস সমিতি, সরকারি মহিলা কলেজের মহিলা হোস্টেল। পূর্ব দিকে মাঝখানে ছোট একটি খাল। যার পাড়েই জেলার সর্বোচ্চ ক্ষমতার অধিকারী কর্মকর্তাদের সরকারি বাসভবন।

তবে নিরাপত্তাহীনতায় সার্কিট হাউস। যে ভবনে উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা এসে থাকছেন। রয়েছেন জেলার কয়েকটি দপ্তরের উপ-পরিচালক। অথচ এই সার্কিট হাউজের সামনে নির্মিত ঈদ উল ফিতর ও ঈদ উল আযহার নামাজ আদায়ের জন্য ঈদগা মাঠ যেন পার্ক ও বিনোদনের একমাত্র স্থল। যেখানে প্রতিদিন বিকেল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত নানা ধরনের মানুষের আনাগোনা থাকে।

মাঠটিতে বছরে দুইটি ঈদের নামাজ আদায় করা হয়। দুই ঈদের নামাজ নতুন নির্মিত বরগুনা সার্কিট হাউজ মাঠ ও শহরের প্রাণ কেন্দ্রে কেন্দ্রীয় আবুল হোসেন ঈদগাহ মাঠে জেলা সদরের সকল মুসলিম উম্মাহ নামাজ আদায় করে থাকেন।

বরগুনা শহরে কোন পার্ক কিংবা শিশুদের বিনোদনের জায়গা না থাকায় নামাজের এই স্থানকে পার্ক ও বিনোদনের একমাত্র স্থান হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। চলছে রাতের আঁধারে যুগলদের অশ্লীলতাও।

জায়গাটি সরকারি দপ্তর ও বাসভবনের মাঝামাঝি হলেও নির্মিত ঈদগাহ মাঠের পাশে রয়েছে একসময়ের ধান চাষের ফসলি জমি। আজ সে মাঠটি ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার মাঠে পরিনত হয়েছে। নিরিবিলি ও মনোরম পরিবেশ হওয়ায় এই স্থানটি আজ বিনোদনের কেন্দ্র হয়ে উঠেছে।

সার্কিট হাউসে ঘুরতে আসা অনেকেই বলছেন শহরের আশপাশে থাকা মনোরম পরিবেশের পর্যটন স্থানগুলো অনিরাপদ। সেখানে আবার বিবাহিত দম্পতিরা ঘুরতে গেলে তাদেরকেও পড়তে হয় নানা ধরনের প্রবঞ্চনায়। স্থানীয়রা পর্যটকদের ফাঁদে ফেলে মোবাইল ও টাকা পয়সা রেখে দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে।

প্রতিদিন বিকেলে সার্কিট হাউজ ঈদগাহ মাঠে বসে হালি কয়েক ফুসকা ও চটপটির দোকান। রয়েছে চায়ের দোকানও। ঘুরতে আসা প্রেমিক-প্রেমিকা, নয়া কিংবা শিশু সহ দম্পতি ছাড়াও গাড়ি প্রশিক্ষণ ও ভোর বেলার যোগ ব্যায়ামে এই সার্কিট হাউজ ঈদগাহ মাঠই ব্যবহার হচ্ছে।

তাই বরগুনা সার্কিট হাউসের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে হলেও প্রশাসনের কড়া নজরদারি রাখতে সচেতন মহলের অভিমত। পাশাপাশি বরগুনা পৌরসভা থেকে বরগুনায় নান্দনিক ও শিশুসুলভ পার্ক তৈরি করতে অচিরেই উদ্যোগ গ্রহণ করবেন বলে আশাবাদী বরগুনা পৌরবাসী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: সাইবার প্লানেট বিডি